কবিতা

 

আসল দ্বীন

আতিয়ার রহমান

মাদরা, কলারোয়া, সাতক্ষীরা।

আজ মুসলমান খাচ্ছে দোলা

ঘূর্ণিপাকের ঘূর্ণিতে

তিহাত্তরটি নাও সাজানো

উঠবে কে বা কোনটাতে?

সব নায়ের ঐ মাঝি বলে

এটাই হ’ল আসল দ্বীন।

জান্নাতেরই এই ঠিকানা

সব পাতকীর ভাবনাহীন।

অবুঝ পথিক যে পথ পেল

সেই পথেতে ছুটল ঠিক,

বুঝল না সে জানল না আর

ভাবল না তো দিগ্বিদিক।

সঠিক সে তো সেই তরী যার

আল্লাহ্র রাসূল (ছাঃ) কান্ডারী

বোকা তার চিনতে পারে?

রঙ দেখে হয় ভীন দ্বারী।

চেষ্টাতে তোর মিলবে সঠিক

কুরআন-হাদীছ মন্থনে,

বুঝবি তখন ভুল নায়েতে

যাচ্ছিস বেয়ে কোনখানে?

আল্লাহ্র খুশী পাইতে হ’লে

কুরআন-হাদীছ পড়তে হয়

তবেই সঠিক বুঝবে তখন,

উঠতে হবে কোন সে নায়।

একটি শুধুই চাওয়া

মোল্লা আব্দুল মাজেদ

পাংশা, রাজবাড়ী।

আমার সকল চাওয়ার মাঝে একটি শুধু চাওয়া

সব সাধনা হোক যে প্রভু তোমারি গান গাওয়া।

যে গান দোলায় মরুর বুকে

হেরার গুহায় তীব্র সুখে

সে গান দোলাও আমার বুকে

এটাই পরম পাওয়া,

একটি শুধু চাওয়া প্রভু তোমারি গান গাওয়া।

আমার মাথা দাও লুটিয়ে তোমার পায়ের তলে

তোমার প্রেমের তীব্র অনল আমার ভেতর জ্বলে।

শক্তি জাগাও আমার মনে

আমার সকল কাজের ক্ষণে

দাও চুকে দাও সংগোপনে

সব চাওয়া সব পাওয়া,

একটি শুধু চাওয়া প্রভু তোমারি গান গাওয়া;

আমার সকল চাওয়ার মাঝে একটি শুধু চাওয়া।

লাববাইক আল্লাহুম্মা লাববাইক

সাইফুল ইসলাম

শ্যামপুর, মতিহার, রাজশাহী।

লাববাইক আল্লাহুম্মা লাববাইক

উঠলো রঙিন আলোর কিরণ চারিদিক।

একটি কথা লক্ষ কণ্ঠে আসলো ভেসে ইথারে,

হাযির প্রভু, হাযির আমি তোমার ক্ষমার দুয়ারে।

লুটলো শির এই দেহমন বাঁধ ভেঙ্গে গেছে সব ভাষার,

অহি-র ধারায় স্নিগ্ধ মুমিন শুভ্র পোষাক এক বাহার।

সোনা রোদে পুড়লো দেহ শুদ্ধ হ’ল অসাম্য,

ইখলাছে নাই ছোট বড় ভেদ-দাশের জীবন অমান্য।

আল্লাহ প্রেমে বিভোর মানুষ নবীর গাঁয়ের পথ মাড়ায়,

সারা জাহানে নবীর শাসন দেখবো কবে দোর গোঁড়ায়?

সামনে আলোর বিপ্লবী দিন স্বপ্ন অাঁকি দুই চোখে,

অহি-র বিধান কায়েম হবে জীবন হাসে সেই সুখে।

সন্ত্রাস

মুহাম্মাদ শহীদুল্লাহ

নলত্রী, গোদাগাড়ী, রাজশাহী।

সন্ত্রাসে ভরে গেছে

মোদের সোনার দেশটা,

সকাল-বিকাল রাত-দুপুরে

চলছে খুনের চেষ্টা।

দেশে যারা টাকা ওয়ালা

খুন হ’তে হয় তাদের ফের,

টাকার লোভে সন্ত্রাসীরা

যিম্মী করে সন্তানের।

সত্য কথা বলতে বাধা

একটু নাহি করে ভয়,

তাইতো তারা সন্ত্রাসীদের

নির্মমতার শিকার হয়।

শত শত খুন করিয়া

সন্ত্রাসীরা পায় ছাড়া,

দোষ না করেও জেল খাটে ভাই

নিরপরাধ ব্যক্তিরা।

ঘুষ দিলেই ফের সন্ত্রাসীদের

মাফ হয়ে যায় সকল খুন,

যার কারণে চলছে এত

হত্যা, ধর্ষণ, চুরি, গুম।

মশাদের ন্যায় এই দেশেতে

সন্ত্রাসীদের ঘাঁটি ভাই,

এমন হ’লে একটুকু সুখ

কি করিয়া পাওয়া যায়?

***