কবিতা


দৃঢ় প্রত্যয়ী সোনামণিরা

মুহাম্মাদ নুরুল ইসলাম প্রধান।

(১১ই সেপ্টেম্বর’১৫ তারিখে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় ‘সোনামণি সম্মেলন’ উপলক্ষ্যে রচিত এবং সম্মেলনে স্বকণ্ঠে আবৃত্ত)

 

আজকে আমরা অবশ্যই কচিকাঁচা, সবাই ছোট ছোট বাচ্চা,

কুরআনের আলোয় জীবন গড়ে আমরাই হবো মুসলমান সাচ্চা।

আখেরী নবীর বাতলানো পথে চলি মোরা সোজা-সাপ্টা,

মোদের দেহমনে লাগতে দেই না কোন তাগূতী ধোঁকা-ঝাপ্টা।

 

মোরা অহি-র বিধান মনে প্রাণে নিয়ে চলি ফিরক্বায়ে নাজিয়ার পথে,

মানব রচিত ভেজাল বিধান মানি না মোরা, সওয়ার হইনা শয়তানী রথে।

অহি-র বিধান শিখিয়েছে মোদেক এই দুনিয়া ক্ষণস্থায়ী

নবী মুহাম্মাদের (ছাঃ) তরীকায় চলে জান্নাতে পেতে চাই আসন স্থায়ী।

 

আল্লাহ চাহেতো সফল আমরা হবোই ছহীহ সুন্নাহর পথে চলে,

কাফের-মুশরেক যা বলে বলুক সব দেই মোরা ছুঁড়ে ফেলে।

তোমরা যারা রয়েছ বড়রা, তোমাদের কাছে বলি,

তোমরা সৎ হয়ে আমাদেক শেখাও যেন সদা সৎপথে চলি।

 

তোমাদের কারণে সমাজ যদি হয় কলুষিত ঝঞ্ঝাময়

সে ঘুনেধরা সমাজ আমাদের পরে প্রভাব ফেলিবে নিশ্চয়।

তোমরা অগ্রজ, আদর্শ হয়ে তৌহীদের পথে থাকো অবিচল,

তবেই তো মোদের পথ হবে কুসুমাস্তীর্ণ বাধাহীন ছলচ্ছল।

এসো আজি মোরা অনুজে-অগ্রজে মিলে মিশে একদিল হয়ে

ছিরাতে মুস্তাক্বীমের পথে চলি কঠিন পদক্ষেপে, দৃঢ় প্রত্যয়ে।।

(আলোচনা ও অনুষ্ঠান- সিডি দ্রষ্টব্য)

আহবান

মুহাম্মাদ মাসঊদুর রহমান

তালা, সাতক্ষীরা।

হায়রে মানুষ নেই কিরে হুঁশ

করে যাচ্ছে অন্যায়

তোমার কঠিন এ পাষাণ মনে

জাগবে কবে ভয়?

তুমি তো শ্রেষ্ঠ সৃষ্টির জ্যেষ্ঠ

আশরাফুল মাখলূকাত

করছ দুর্নীতি ঘটছে অবনতি

এভাবে কাটছে দিন-রাত।

নেই কোন একতা বিভক্তি ভিন্নতা

করে চলেছ যুলুম

পশু-পাখি ঘৃণা করে আনুগত্যে তাচ্ছিল্য করে

তোমার ভাঙবে কবে ঘুম?

দেশে নেই শান্তি অশান্তিতে নেই ক্লান্তি

হবে কি পরিণতি?

দলে দলে অবিচার বিরোধীদের অত্যাচার

কি ভয়াবহ রাজনীতি!

দলমত সব ছেড়ে এক আল্লাহর দিকে ফিরে

মানুষ হও আগুয়ান

হারানো মর্যাদা ফিরে পাবে সব মাথা

পাবে সেই মান।

ধর্ম, সমাজরীতির আড়ালে

এফ.এম. নাছরুল্লাহ হায়দার

কাঠিগ্রাম, কোটালীপাড়া, গোপালগঞ্জ।

ধর্ম, সমাজরীতির অাঁড়ালে ওরা

সীমাহীন নিকৃষ্ট, মানবতা বিরোধী

দিবা-রাত্রির অাঁধারে কত অন্যায় ওদের

সমুদ্রের স্রোতের মত ভেসে বেড়ায় বিশ্বজুড়ে

স্বাধীনতার নামে বা স্বাধীনতার মাঝে

সারা পৃথিবী আজ আতংকিত,

হায়েনার মত হিংস্র ক্ষমতাসীন মানুষগুলো

মযলূম জনতার উপর!

ফিলিস্তীনে শিশুর কান্না, মায়ের আহাজারি

আকাশ-বাতাস ঐ আর্তনাদে উঠেছে হয়ে ভারি।

পেট্রোল বোমা, ড্রোন ও বিমান হামলায়

মানুষ মারো তোমরা

পাইনি খুঁজে কোন ধর্মে এর সমর্থন,

মানুষ মেরে মানুষের শান্তিধারা

বৃথা শুধু চেষ্টাই হবে অকারণ।

কুরআন-বাইবেল বলেনি মানুষ হত্যা কর

বেদ-গীতাও করেনি এর সমর্থন,

ত্রিপিটক বলে আমিও চাই নাই

মানুষের এমন নিষ্ঠুর আচরণ!

তবে কেন তোমরা হয়ে আজ গোমরাহ

ঘুমন্ত মানুষকে করছ লাশ

ধর্মীয় অনুশাসন ভুলে তোমরা আজ

যারা পৃথিবীর করছ সর্বনাশ,

সন্ত্রাস করে চাও সন্ত্রাস দমন?

মানুষ না মেরে মানুষের জীবন বাঁচানোর

প্রচেষ্টা হবে সর্বাগ্রে,

সমঝোতা সন্ধি মুক্তি পাবে দ্বন্দ্বী

মানবের প্রতি ভালবাসা যদি থাকে

সবার আগে।

নতুন রবি

তরীকুল ইসলাম

সান্তাহার, আদমদিঘী, বগুড়া।

অন্ধকারের পর্দা ঠেলে

উঠল নতুন রবি

সত্য ন্যায়ের মশাল জ্বেলে

এলেন বিশ্বনবী।

কালো রাত্রির ভয়াল থাবায়

সবাই যখন শান্তিহীন

তখন আমার দ্বীনের নবী

আনলেন ফিরে মুক্ত দিন।

দ্বীন প্রচারে আসল অনেক

অত্যাচারীর ছোবল

সব কিছুতে শান্ত তিনি

দৃঢ় মনে অটল।

যার ছোয়াতে মুক্ত হ’ল

জ্বলল প্রদ্বীপ শিখা

সেই নামটি জগৎ জুড়ে

স্বর্ণ দিয়ে লিখা।