কবিতা

 

দুর্নীতি


এফ.এম. নাছরুল্লাহ হায়দার
কাঠিগ্রাম, কোটালীপাড়া, গোপালগঞ্জ।

নিরীহ মানুষ নিরীহ জনগণ
ওদের দাবার গুটির চাল,
দেশটা লুটে খাচ্ছে ওরা
দেশ বড় আজ নাজেহাল।
আমার দোষটা তোমায় দিয়ে
নিজের ঘাড়ের নামাই ভূত,
ধরি কষে পরের দোষে
একটু যদি পাই সে খুঁত।
দেশের ভাল চাই কদাচিৎ
স্বার্থ যদি থাকে,
লক্ষ জনতা রাজপথে নামাই
রাজনীতিরই ডাকে।
মরুক যত গার্মেন্টস শ্রমিক
আন্দোলনে লোক,
মেকি বেদনায় দলের স্বার্থে
জানাই তাদের শোক।
এমন নীতির প্রীতি দিয়ে
করছি যে রাজনীতি,
থাকে যদি দল ক্ষমতায়
ধরবে কে দুর্নীতি?
***

আলোর আশা


আসাদুল্লাহ
পিয়ারপুর, মোহনপুর, রাজশাহী।

নামবে অাঁধার তাই বলে কি
আলোর আশা করবো না?
বিপদ-বাধায় পড়বো বলে কি
ন্যায়ের পথে লড়বো না?
মেঘ দেখে চাঁদ
যায় কি দূরে হারিয়ে?
যায় কি নদী
পাহাড় দেখে পালিয়ে?
দুঃখ আছে তাই বলে কি
স্বপ্ন সুখের দেখতে নেই?
রণাঙ্গনে হার আছে বলে কি
জেতার কানুন শিখতে নেই?
বজ্রপাতের ভয়ে কি বিহঙ্গ
পাখায় তাকে সব অঙ্গ?
ঝড়-তুফানে মরবো বলে কি
সাগর পাড়ি দেব না?
দুর্ঘটনা ঘটে বলে কি
দেশ-বিদেশে ভ্রমণ করতে নেই?
রাস্তা-ঘাটে দুর্ঘটনা হয়
তাই বলে কি পথ চলতে নেই?
জিহাদের ময়দানে মৃত্যু হয়
তাই বলে কি লড়াই করবো না?
ভূমিকম্প হয় বলে কি
ভুমিতে চলাফেরা করবো না?
হিংস্র প্রাণীর অত্যাচারে কি
নিরীহ প্রাণীর আহার্য গ্রহণ করতে নেই?
অতি সাহসের কারণে কি মোরা
ঘরের কোণে বসে রই?
***

মুনাজাত


মুহাম্মাদ শহীদুল্লাহ
চানগাও, আমদিয়া, নরসিংদী।


মুনাজাত অধম বান্দার এই যে,
আল্লাহরর ভালবাসা চায় পেতে।
যতদিন থাকব দুনিয়ায় বেঁচে,
ইসলামের উপর রেখ আমাকে।
রিযিক দাও তুমি হালাল পথে,
পাই যেন তা সহজতর ভাবে।
হালাল বস্ত্তকে সামনে রেখো,
হারাম দ্রব্যকে রাখিও দূরে।
সূদ যেন আমাকে স্পর্শ না করে,
যেনা-ব্যভিচার পায় না যেন ছুতে।
করেছি অনেক গুনাহ না বুঝে,
ক্ষমা করে দাও তুমি এই বান্দাকে।
তুমি ব্যতীত বল কে আর আছে,
যে আমার পাপ মোচন করবে?
কঠিন পরীক্ষায় দিও না মোরে,
এই মুনাজাত করি তোমার তরে।
নিক্ষেপ কর না জাহান্নামে
রেখ আমাকে জান্নাতে।
***

ইচ্ছে করে


মুহাম্মাদ শহীদুল্লাহ
নলত্রী, গোদাগাড়ী, রাজশাহী।

ইচ্ছে করে
কুরআন ও ছহীহ হাদীছ পড়তে।
ইচ্ছে করে
জীবনটাকে অহী দিয়ে গড়তে।
ইচ্ছে করে
নির্ভয়ে নবীর পথে চলতে।
ইচ্ছে করে
কুরআন-হাদীছের দ্বীনি কথা বলতে।
ইচ্ছে করে
ঈমান নিয়ে শহীদ হয়ে মরতে।

***