সংগঠন সংবাদ

আন্দোলন

প্রশিক্ষণ

আলমডাঙ্গা, চুয়াডাঙ্গা ৩রা এপ্রিল শুক্রবার : অদ্য বিকাল ৪-টায় ‘আহলেহাদীছ আন্দোলন বাংলাদেশ’ আলমডাঙ্গা উপযেলার উদ্যোগে শ্রীনগরে এক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। শ্রীনগর শাখা ‘আন্দোলন’-এর সভাপতি জনাব মাওলা বক্স-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী জেনারেল অধ্যাপক মাওলানা নূরুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন মেহেরপুর যেলা ‘আন্দোলন’-এর সাধারণ সম্পাদক তরীকুয্যামান, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মুমিন এবং গাংনী উপযেলা ‘আন্দোলন’-এর সহ-সভাপতি ডাঃ আবুল কালাম আযাদ প্রমুখ।

মোহনপুর, রাজশাহী ১৪ই এপ্রিল মঙ্গলবার : অদ্য সকাল ১০-টায় ‘আহলেহাদীছ আন্দোলন বাংলাদেশ’ মোহনপুর উপযেলার উদ্যোগে ধুরইল ডি.এস. কামিল মাদরাসা মিলনায়তনে এক কর্মী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। উপযেলা ‘আন্দোলন’-এর সভাপতি মাওলানা দুর্রুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় দফতর ও যুববিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক আমীনুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক ড. মুহাম্মাদ সাখাওয়াত হুসায়েন ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক ড. মুহাম্মাদ কাবীরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সঞ্চালক ছিলেন উপযেলা ‘আন্দোলন’-এর সাধারণ সম্পাদক জনাব এমদাদুল হক। প্রশিক্ষণে উপযেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বিপুল সংখ্যক কর্মী অংশগ্রহণ করেন।

মুজিবনগর, মেহেরপুর ২৪শে এপ্রিল শুক্রবার : অদ্য সকাল ৯-টায় ‘আহলেহাদীছ আন্দোলন বাংলাদেশ’ গোপালনগর শাখার উদ্যোগে যেলার মুজিবনগর থানার গোপালনগর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে এক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। থানা ‘আন্দোলন’-এর সভাপতি জনাব আযমাতুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী জেনারেল অধ্যাপক মাওলানা নূরুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন যেলা ‘আন্দোলন’-এর সাধারণ সম্পাদক তরীকুয্যামান ও সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মুমিন প্রমুখ।

মসজিদ উদ্বোধন

দামুড়হুদা, চুয়াডাঙ্গা ১৭ই এপ্রিল শুক্রবার : অদ্য সকাল ১০-টায় চুয়াডাঙ্গা যেলার দামুড়হুদা থানাধীন শিবনগর আহলেহাদীছ জামে মসজিদ উদ্বোধন উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি জনাব কামালুদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী জেনারেল অধ্যাপক মাওলানা নূরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় গবেষণা ও প্রকাশনা সম্পাদক অধ্যাপক আব্দুল লতীফ। উল্লেখ্য, এটাই এতদঞ্চলে প্রথম নবনির্মিত আহলেহাদীছ জামে মসজিদ।

মৃত্যু সংবাদ

(১) চাঁপাই নবাবগঞ্জ যেলার বিশিষ্ট আলেম ও বাগ্মী মাওলানা দুর্রুল হুদা আইয়ূবী (৮৪) গত ৪ঠা মে সোমবার রাজশাহী মহানগরীর দড়িখরবোনাস্থ নিজ বাসভবনে রাত ৮-টা ৫০ মিনিটে মৃত্যুবরণ করেন (ইন্না লিল্লা-হি...)। পরদিন ৫ই মে সকাল সাড়ে ৭-টায় স্থানীয় কাদীরগঞ্জ হাজী লাল মুহাম্মাদ কেন্দ্রীয় আহলেহাদীছ ঈদগাহ ময়দানে তাঁর প্রথম জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় ইমামতি করেন তার কনিষ্ঠ পুত্র রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মুহাম্মাদ ওবায়দুল্লাহ। জানাযায় উপস্থিত ছিলেন ‘আহলেহাদীছ আন্দোলন বাংলাদেশ’-এর মুহতারাম আমীরে জামা‘আত, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবরী বিভাগের সিনিয়র প্রফেসর ড. মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ আল-গালিব, ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক ও মাসিক আত-তাহরীক সম্পাদক ড. মুহাম্মাদ সাখাওয়াত হোসায়েন এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী ও ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ, স্থানীয় বাণীবাজার ইশা‘আতে ইসলাম মাদরাসা ও নওদাপাড়া আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফীর শিক্ষকবৃন্দ। এছাড়া শহরের অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সুধীবৃন্দ জানাযায় অংশগ্রহণ করেন। এরপর তার নিজ গ্রাম চাপাই নবাবগঞ্জ যেলার গোমস্তাপুর থানাধীন চকপুস্তমে বেলা সাড়ে ১১-টায় তার দ্বিতীয় জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ইমামতি করেন তার ২য় পুত্র রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মুহাম্মাদ বারকুল্লাহ। অতঃপর তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৩ পুত্র ও ৩ কন্যা রেখে গেছেন।

কর্মজীবনে তিনি প্রথমে চাপাই নবাবগঞ্জ শহরের নামো শংকরবাটী হিফযুল উলূম আলিয়া মাদ্রাসার হেড মাওলানা পদে যোগদান করেন এবং সেখানে ৮ বছর শিক্ষকতা করেন। অতঃপর তিনি গোমস্তাপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ধর্মীয় শিক্ষক পদে যোগদান করেন এবং সেখান থেকেই অবসর গ্রহণ করেন। শিক্ষকতা ও বক্তৃতার পাশাপাশি তিনি ছোট-বড় ১২টি পুস্তক রচনা করেন। তন্মধ্যে মুক্তির সন্ধান, কুমারী গঞ্জনা, যৌতুকের মরণ কৌতুক, সরল পথের ব্যতিক্রম, কাব্য কানন, মেকাপ, কালেমা তাইয়েবাহ, আদর্শ নামাজ শিক্ষা প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

(২) ‘আহলেহাদীছ আন্দোলন বাংলাদেশ’ কুমিল্লা যেলার প্রধান উপদেষ্টা, ‘বাংলাদেশ আহলেহাদীছ যুবসংঘ’-এর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি জামীলুর রহমানের পিতা এবং ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক ও মাসিক আত-তাহরীক সম্পাদক ড. মুহাম্মাদ সাখাওয়াত হোসায়েনের শ্বশুর হাফেয আব্দুল মতীন (৭৫) গত ১০ই মে রবিবার দিবাগত রাত ১০-টায় কুমিল্লার বুড়িচং থানাধীন কাকিয়ারচর গ্রামে নিজ বাড়ীতে মৃত্যুবরণ করেন। (ইন্না লিল্লা-হি ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজেঊন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৫ পুত্র ও ৪ কন্যা সহ বহু নাতি-নাতনী, আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে যান। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ ডায়বেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও কিডনী রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুর পূর্বে দেড়মাস যাবৎ তিনি শয্যাশায়ী ছিলেন।  পরদিন ১১ই মে সোমবার বাদ যোহর কোরপাই-কাকিয়ারচর ইসলামিয়া সিনিয়র মাদরাসা ময়দানে তার ১ম জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় ইমামতি করেন তার ২য় পুত্র হাফেয জামীলুর রহমান। অতঃপর দুপুর ২-টায় কাকিয়ারচর আহলেহাদীছ জামে মসজিদে তার ২য় জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। এখানে ইমামতি করেন তার কনিষ্ঠ পুত্র ইহসান এলাহী যহীর।

কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক ড. মুহাম্মাদ সাখাওয়াত হোসায়েন, ঢাকা যেলা ‘আন্দোলন’-এর সাধারণ সম্পাদক তাসলীম সরকার, অর্থ সম্পাদক কাযী হারূণুর রশীদ, যেলা ‘আন্দোলন’-এর সভাপতি মাওলানা ছফিউল্লহ সহ ‘আন্দোলন’ ও ‘যুবসংঘে’র নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মকর্তা, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ ও সমাজ নেতাসহ যেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বিপুল সংখ্যক মুছল্লী জানাযায় অংশগ্রহণ করেন। অতঃপর তাকে কাকিয়ারচর গ্রামে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়।

তিনি পাকিস্তানের জামি‘আ সালাফিইয়াহ ও মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেন। ১৯৭৮ সালে ‘বাংলাদেশ আহলেহাদীছ যুবসংঘ’ গঠিত হ’লে তিনি মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার প্রচার সম্পাদক হন। কর্মজীবনে তিনি রাজশাহীর চারঘাট থানাধীন ভায়ালক্ষ্মীপুর মাদরাসা ও কুমিল্লার বুড়িচং থানাধীন কোরপাই-কাকিয়ারচর ইসলামিয়া সিনিয়র মাদরাসায় শিক্ষকতা করেন। তিনি সঊদী সরকারের মাবঊছ হিসাবে বাংলাদেশে কর্মরত ছিলেন। তিনি আহলেহাদীছ আন্দোলনের সাথে আমৃত্যু কাজ করেছেন এবং সংগঠনকে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন।

[আমরা মাইয়েতগণের রূহের মাগফেরাত কামনা করছি এবং তাঁদের শোক সন্তপ্ত পরিবারবর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।-সম্পাদক]