বিজ্ঞান ও বিস্ময়

মহাকাশে সবজি বাগান!

এবার মহাকাশে সবজি চাষ করার প্রকল্প হাতে নিয়েছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে বসবাসকারী নভোচারীদের জন্য পৃথিবী থেকে খাবার পাঠাতে বিপুল অর্থ খরচ হয়। এই খরচ কমাতেই নাসা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ডিসেম্বর মাসে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। ভূপৃষ্ঠ থেকে ২৩০ মাইল ওপরে তৈরী হবে এই সবজি বাগান। নাসার ভেজিটেবল প্রোডাকশন সিস্টেমের আওতায় এ বছরের শেষের দিকে এই সবজি বাগান স্থাপনের কাজ শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। সবজি বাগান তৈরীর জন্য আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে বিশেষ নভোচারী পাঠানো হবে। সেখানে তারা প্রাথমিকভাবে ছয় প্রজাতির ‘লেটুস পাতা’ চাষ করবেন। মহাকাশে অবস্থানকালে মহাকাশচারী ডন পেটিটের মাথায় এই নতুন চিন্তা আসে। ইতিমধ্যে তিনি মহাকাশ স্টেশনে পরীক্ষামূলকভাবে চারাগাছ লাগিয়ে সফলতা পেয়েছেন। মহাকাশে উৎপাদিত সবজি ব্যাকটেরিয়ামুক্ত ও পরিষ্কার হবে বলেও বিজ্ঞানীরা আশা প্রকাশ করেন।

সৌরজগতের বাইরে ৭১৫টি গ্রহ আবিষ্কৃত

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থার (নাসা) বিজ্ঞানীরা আমাদের সৌরজগতের বাইরে নতুন ৭১৫টি গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন। তাঁরা ঐ একগুচ্ছ গ্রহ আবিষ্কারের কথা সম্প্রতি ঘোষণা করেন। পৃথিবীসদৃশ গ্রহ অনুসন্ধানে নিয়োজিত দূরবীক্ষণ যন্ত্র কেপলার স্পেস টেলিস্কোপের পর্যবেক্ষণে ঐ গ্রহগুলোর উপস্থিতি ধরা পড়ে। নাসার গবেষক জ্যাক লিসাওয়ার বলেন, নতুন গ্রহগুলো আবিষ্কারের ফলে তাঁদের পরিচিত গ্রহের মোট সংখ্যা দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় এক হাযার ৭০০টিতে পৌঁছাল। নতুন করে আবিষ্কৃত গ্রহগুলো পৃথকভাবে ৩০৫টি নক্ষত্রকে কেন্দ্র করে ঘুরছে। তবে অতি দূরের এসব গ্রহের গঠন-বৈশিষ্ট্য ও জলবায়ু-পরিবেশ এখনো তেমন কিছু জানা সম্ভব হয়নি। এসব নতুন পৃথিবীতে জীবনধারণের অনুকূল পরিবেশ (যেমন মাটি বা পাথুরে পৃষ্ঠতল, তাপমাত্রা, পানির অস্তিত্ব এবং নক্ষত্র থেকে সংশ্লিষ্ট গ্রহের দূরত্ব অবস্থান ও সার্বিক আবহাওয়া) সম্পর্কে নিশ্চিত তথ্য পেতে হ’লে আরও অপেক্ষা করতে হবে।

বিশ্বজুড়ে বিনামূল্যে ওয়াই-ফাই!

যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রতিষ্ঠান ‘আউটারনেট’ নামে একটি ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক অবকাঠামো তৈরীর পরিকল্পনা করেছে। যাতে সারা বিশ্বের মানুষ বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে। এই নেটওয়ার্ক অবকাঠামো তৈরি করা সম্ভব হ’লে পৃথিবীর সবার কাছে বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা পৌঁছাবে। এতে কোন সরকারী বিধিনিষেধ আরোপের সুযোগ বা ফিল্টার করার সুযোগ থাকবে না। প্রতিষ্ঠানের প্রস্তাব অনুযায়ী, শত শত কিউব স্যাটেলাইট তৈরী করে মহাকাশে পাঠানো হবে এবং সেখানে এই স্যাটেলাইটগুলো একত্রে কাজ করবে। এই নেটওয়ার্ক ব্যবস্থায় যে কেউ তাঁর ফোন বা কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন। বর্তমানে বিশ্বে ৪০ শতাংশ মানুষের কাছে এখনও ইন্টারনেট সুবিধা পৌঁছেনি। ‘আউটারনেট’ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হ’লে সাইবেরিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র কিংবা আফ্রিকার দুর্গম কোন গ্রামেও পৌঁছে যাবে ইন্টারনেট।