সংগঠন সংবাদ

আন্দোলন

তাবলীগী ইজতেমা ২০১৩

বক্তব্যসমূহের অডিও-ভিডিও শুনতে ক্লিক করুন

রাজশাহী ২৮ ফেব্রুয়ারী ও ১ মার্চ বৃহস্পতি ও শুক্রবার : ‘আহলেহাদীছ আন্দোলন বাংলাদেশ’-এর দু’দিনব্যাপী ২৩তম বার্ষিক তাবলীগী ইজতেমা রাজশাহী মহানগরীর নওদাপাড়া ট্রাক টার্মিনাল ময়দানে সফলভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফালিল্লা-হিল হাম্দ। মুহতারাম আমীরে জামা‘আত প্রফেসর ডঃ মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ আল-গালিব-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এবারের তাবলীগী ইজতেমায় হরতাল সত্ত্বে্ও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বহু মানুষ উপস্থিত হন।

এবারের তাবলীগী ইজতেমার ১ম দিন আকস্মিক হরতাল এবং দেশের বিরাজমান সংকটময় পরিস্থিতির কারণে উপস্থিতি সংখ্যা ছিল বিগত বছরগুলির তুলনায় কম। বাইরের যেলাগুলোর মধ্যে কেবল কুমিল্লা, পঞ্চগড় ও ফরিদপুর থেকে রিজার্ভ বাসগুলো সময় মত উপস্থিত হ’তে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে বগুড়া ও পার্শ্ববর্তী কয়েকটি যেলা থেকে অল্প কিছু গাড়ী আসলেও সাতক্ষীরা, মেহেরপুর, নরসিংদী, পাবনা, দিনাজপুর সহ অধিকাংশ যেলা থেকে কোন গাড়ীই আসতে পারেনি। তারপরও ট্রেনে ও বিভিন্ন যানবাহনে বিচ্ছিন্নভাবে অনেক মানুষ ইজতেমায় শরীক হন। 

১ম দিন বাদ আছর (৪-১৫ মিঃ) মুহতারাম আমীরে জামা‘আতের উদ্বোধনী ভাষণের মধ্য দিয়ে ইজতেমার কার্যক্রম শুরু হয়। এর আগে অর্থসহ পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করেন আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী নওদাপাড়া, রাজশাহীর হেফয বিভাগের প্রধান হাফেয লুৎফর রহমান। স্বাগত ভাষণ পেশ করেন তাবলীগী ইজতেমা ব্যবস্থাপনা কমিটির আহবায়ক ও ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় গবেষণা ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক মুহাম্মাদ আব্দুল লতীফ।

আমীরে জামা‘আতের উদ্বোধনী ভাষণ :

উদ্বোধনী ভাষণে মুহতারাম আমীরে জামা‘আত উপস্থিত জনগণকে তাক্বওয়ার উপদেশ দিয়ে বলেন, তাক্বওয়াই হ’ল জান্নাতে প্রবেশের প্রধানতম শর্ত। মানুষের আমল যত সুন্দরই হোক না কেন, যদি তাতে আল্লাহভীতি না থাকে, তবে তার জন্য জান্নাত নেই। সুতরাং নিজের আমল নিয়ে কখনও কেউ যেন অহংকারী হয়ে না উঠে, বরং যতটুকু আমলই আমরা করি তা যেন সর্বদা আল্লাহকে রাযী-খুশী করার জন্য হয়। এটাই হ’তে হবে আমাদের একমাত্র লক্ষ্য। আর যদি ভিতরে হিংসা, অহংকার, রিয়া ঢুকে পড়ে, তবে সে আমল দ্বারা আল্লাহ্র সন্তুষ্টি কখনই লাভ করা যাবে না। তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, দেশ পরিচালনা করতে হবে কেবলমাত্র আল্লাহ্র বিধান মোতাবেক, সেটাই সত্য, সেটাই সুন্দর। এর বাইরে আর যা কিছু আছে সবই মিথ্যা, সবই অসুন্দর। সাথে সাথে আলেম-ওলামার উপর যুলুম-নির্যাতন থেকে বিরত থাকার জন্য তিনি সরকারের প্রতি জোরালো আহবান জানান। পরিশেষে তিনি ইজতেমা ময়দানে প্রতি মুহূর্তে নেকী অর্জনের নিয়ত রাখা ও ইজতেমার পরিবেশ সুষ্ঠু ও সুন্দর রাখার জন্য সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন। অতঃপর আল্লাহ্র নামে দু’দিনব্যাপী ২৩তম বার্ষিক তাবলীগী ইজতেমা-র শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

মুহতারাম আমীরে জামা‘আতের উদ্বোধনী ভাষণের পর দু’দিনব্যাপী তাবলীগী ইজতেমায় পূর্বনির্ধারিত বিষয়বস্ত্ত সমূহের উপর বক্তব্য পেশ করেন ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মাওলানা মুহাম্মাদ নূরুল ইসলাম (মেহেরপুর), সাহিত্য ও পাঠাগার সম্পাদক অধ্যাপক মুহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম (যশোর), প্রচার ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক ড. মুহাম্মাদ সাখাওয়াত হোসাইন, ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় শূরা সদস্য মাওলানা জাহাঙ্গীর আলম (খুলনা) ও ড. মুহাম্মাদ কাবীরুল ইসলাম (গোপালগঞ্জ), ‘বাংলাদেশ আহলেহাদীছ যুবসংঘ’-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি মুযাফফর বিন মুহসিন (রাজশাহী), ‘সোনামণি’র কেন্দ্রীয় পরিচালক ইমামুদ্দীন (চাঁপাই নবাবগঞ্জ), আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী, নওদাপাড়া, রাজশাহীর অধ্যক্ষ ও দারুল ইফতা-র সদস্য মাওলানা আব্দুর রাযযাক বিন ইউসুফ (চাঁপাই নবাবগঞ্জ), ঢাকা যেলা ‘আন্দোলন’-এর সাবেক সভাপতি মাওলানা আমানুল্লাহ বিন ইসমাঈল (পাবনা), বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা সাইফুল ইসলাম বিন হাবীব (ঢাকা), তাবলীগ সম্পাদক হাফেয শামসুর রহমান আযাদী (সাতক্ষীরা), সাতক্ষীরা যেলা ‘আন্দোলন’-এর সভাপতি মাওলানা আব্দুল মান্নান (সাতক্ষীরা), নাটোর যেলা ‘আন্দোলন’-এর সভাপতি ড. মুহাম্মাদ আলী (নাটোর), পাবনা যেলা ‘আন্দোলন’-এর সভাপতি মাওলানা বেলালুদ্দীন (পাবনা), যশোর যেলা ‘আন্দোলন’-এর সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক আকবার হোসাইন (যশোর), কেন্দ্রীয় মুবাল্লিগ শরীফুল ইসলাম মাদানী (রাজশাহী), আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী নওদাপাড়ার মুহাদ্দিছ মাওলানা আব্দুল খালেক সালাফী ও শিক্ষক মাওলানা রুস্তম আলী (রাজশাহী) ও মাকবুল হুসাইন (চাঁপাই নবাবগঞ্জ) প্রমুখ।

দু’দিনব্যাপী তাবলীগী ইজতেমা বিভিন্ন পর্যায়ে সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন ‘যুবসংঘ’-এর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি নূরুল ইসলাম ও ঢাকা যেলা ‘আন্দোলন’-এর অর্থ সম্পাদক কাযী হারূনুর রশীদ। তাবলীগী ইজতেমার বিভিন্ন অধিবেশনে কুরআন তেলাওয়াত করেন হাফেয আবদুল আলীম, আব্দুল্লাহ আল-মারূফ, আহমাদ আব্দুল্লাহ শাকির। ইসলামী জাগরণী পরিবেশন করেন আল-হেরা শিল্পী গোষ্ঠীর প্রধান মুহাম্মাদ শফীকুল ইসলাম (জয়পুরহাট) ও অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

১ম দিনের ভাষণ :

উদ্বোধনী ভাষণের পর প্রথম দিন বাদ এশা রাত ৯-টায় প্রদত্ত ভাষণে মুহতারাম আমীরে জামা‘আত তাওহীদে ইবাদতের গুরুত্ব সম্পর্কে বলেন, তাওহীদের কালেমা ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বাক্যটি হ’ল বিপ্লবের এক মহামন্ত্র। আবু জাহলদের মধ্যেও তাওহীদ ছিল। কিন্তু তারা মুসলমান ছিল না। কেননা তাদের তাওহীদে আল্লাহ্র স্বীকৃতি ছিল বটে, কিন্তু আল্লাহর প্রতি আনুগত্য ছিল না। আর নবী মুহাম্মাদ (ছাঃ)-এর তাওহীদের মধ্যে আল্লাহ্র স্বীকৃতিও ছিল, আনুগত্যও ছিল। অথচ আজ মুসলিম জাতির অবস্থা হ’ল, আমরা আল্লাহ্র প্রতি স্বীকৃতি দিয়েছি বটে কিন্তু তাঁর আনুগত্য করি না। এটা ইসলাম নয়। কেবল ‘নারায়ে তাকবীর’ বললেই মুসলমান হওয়া যায় না। তিনি বলেন, ১৯৯৪ সালের ২৯শে জুলাইতে কুরআন পরিবর্তনের দাবীদার নাস্তিকদের বিরুদ্ধে আয়োজিত মহাসমাবেশে সম্মিলিত সংগ্রাম পরিষদের আহবানে সাড়া দিয়ে ‘যুবসংঘ’ ২৬টি বাস নিয়ে অংশগ্রহণ করেছিল। সেদিন ঢাকার মানিক মিয়াঁ এভেনিউয়ে মাত্র ২ মিনিট ১০ সেকেন্ডের ভাষণে আমাদের মুখ দিয়ে আল্লাহ বের করে নিয়েছিলেন, ‘সকল বিধান বাতিল কর, অহি-র বিধান কায়েম কর’। এই ধ্বনি যেদিন বাংলার ঘরে ঘরে, শহরে-বন্দরে সর্বত্র ধ্বনিত হবে, সেদিন বাংলার শাসন-সংবিধানে অবশ্যই পরিবর্তন আসবে ইনশাআল্লাহ। আমরা চাই আমাদের রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতি, ধর্মনীতি সর্বক্ষেত্রেই আমাদের দাসত্ব এবং আনুগত্য হবে স্রেফ আল্লাহ্র জন্য, কোন মানুষের জন্য নয়। যারা আল্লাহকে কেবল সৃষ্টিকর্তা হিসাবে মানে কিন্তু আইন ও বিধানের ক্ষেত্রে দাসত্ব করে শয়তানের, তাদের তাওহীদ হ’ল আবু জাহলদের তাওহীদের ন্যায়। অতএব প্রকৃত মুসলিম হ’তে হ’লে চাই তাওহীদে ইবাদত, চাই সার্বিক জীবনে এক আল্লাহ্র প্রতি নিরংকুশ আত্মসমর্পণ। তিনি বর্তমানে ইসলামী নেতাদের উপর সরকারী যুলুম-নির্যাতন প্রসঙ্গে বলেন, ইসলাম আমাদের সকলের হৃদয়ের ধন। ইসলামের একজন খাদেমের উপর কেউ হামলা করলে প্রত্যেক খাদেমের অন্তরে আঘাত লাগা স্বাভাবিক। আমরা অবিলম্বে সরকারকে এই যুলুম থেকে বিরত থাকার আহবান জানাচ্ছি।

জুম‘আর খুৎবা :

মুহতারাম আমীরে জামা‘আত ইজতেমা প্যান্ডেলে জুম‘আর খুৎবা দেন ও ইমামতি করেন। খুৎবায় তিনি আখেরাতের সফলতা লাভের জন্য করণীয় সম্পর্কে আলোকপাত করেন। এই সময় পূরা প্যান্ডেল ভরে যায়।

২য় দিনের ভাষণ :

ইজতেমার ২য় দিন রাত ১০-টায় প্রদত্ত ভাষণে মুহতারাম আমীরে জামা‘আত রিসালাতের মর্যাদা ও রাসূল (ছাঃ)-এর প্রতি মহববত পোষণের অপরিহার্যতা সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে বলেন, মুহাম্মাদ (ছাঃ) মানবজাতির জন্য আল্লাহ্র প্রেরিত সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী। তাওহীদ ও রিসালাতের চূড়ান্ত বার্তা নিয়ে আল্লাহ তাঁকে প্রেরণ করেছিলেন। পবিত্র কুরআন ও হাদীছ আমরা পেয়েছি তাঁর মাধ্যমেই। সুতরাং সেই রাসূলকেই যদি অস্বীকার করা হয়, তাঁর প্রতিই যদি অশ্রদ্ধা পোষণ করা হয়, তবে তাওহীদ ও সুন্নাতের কোন অস্তিত্ব থাকে না। তাই সবকিছুর মূল হ’ল রিসালত। আর সে কারণেই রাসূল (ছাঃ)-কে দুনিয়ার সকল ব্যক্তি ও বস্ত্তর উপর স্থান দেয়া এবং তাঁর প্রতি ভালবাসা স্থাপন করা ঈমানের অপরিহার্য অঙ্গ। একজন মুসলমান  কখনই প্রিয় নবীর অপমান সহ্য করতে পারে না। যুগে যুগে আল্লাহ্র রাসূলের প্রতি ভালবাসার যে দৃষ্টান্ত মুসলিম উম্মাহ প্রদর্শন করেছে, পৃথিবীর বুকে তার দ্বিতীয় কোন তুলনা নেই। তিনি বিশ্বনবী মুহাম্মাদ (ছাঃ)-এর বিরুদ্ধাচরণকারী কাফির, মুনাফিকদের কথা উল্লেখ করে বলেন, তারা সেদিন ইসলামকে ধূলিসাৎ করে দেয়ার জন্য রাসূল (ছাঃ)-এর প্রতি অপবাদ আরোপ করত এবং তাঁর রিসালাতের প্রতি বিদ্রূপ করে বলত ‘মুযাম্মাম’,  আর  আজ নাস্তিক-মুরতাদরা রাসূল (ছাঃ)-কে ‘মুহাম্মাক’ (মহা+আহম্মক) বলে বিদ্রূপ করছে। ইসলামী শরী‘আতের বিধানমতে আল্লাহ্র রাসূল (ছাঃ)-কে গালিদাতাদের একমাত্র শাস্তি হ’ল মৃত্যুদন্ড। অথচ আজ ৯০% মুসলিমের বাংলাদেশে জাতীয় সংসদে এই নাস্তিকদেরকে ‘শহীদ’ হিসাবে আখ্যা দেয়া হচ্ছে, এটা কখনই মেনে নেয়া যায় না। আমাদের পরিস্কার বক্তব্য, রাসূল (ছাঃ)-কে কটুক্তিকারীদের সাথে কোন আপোষ নেই। তাদেরকে অবশ্যই আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি দিতে হবে। তিনি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবীতে আয়োজিত তথাকথিত ‘শাহবাগ আন্দোলন’কে উদ্দেশ্য করে বলেন, আন্দোলনের নামে এই বেলেল্লাপনা, এই রাজনৈতিক নাটক অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। আলেম-ওলামার বিরুদ্ধে যে নির্যাতন বর্তমানে চালানো হচ্ছে, রাজনৈতিক বিরোধকে পুঁজি করে তাঁদেরকে যে ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলানোর পায়তারা চলছে তার নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, একজন আলেমকে ফাঁসি দেয়া মানে একটি জাতিকে ফাঁসি দেয়া। তাই কোন আলেমের অপমান সহ্য করা হবে না। তিনি বলেন, তিনদিকে ‘কুফরিস্তান’ পরিবেষ্টিত এ বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী হ’লেন এদেশের আলেম সমাজ। তিনি দেশের এই ক্রান্তিকালে সকল দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ভুলে ওলামায়ে কেরামকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার উদাত্ত আহবান জানান। পরিশেষে তিনি এদেশের বুকে ইসলামের পূর্ণাঙ্গ বিজয় কামনা করে সরকারের হেদায়াতের জন্য আল্লাহ্র নিকট দো‘আ করেন এবং নাস্তিক ও মুরতাদ অপশক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহবান জানান।

প্রস্তাবনা সমূহ :

আমীরে জামা‘আতের ভাষণের পরেই সেক্রেটারী জেনারেল অধ্যাপক মাওলানা নূরুল ইসলাম সরকারের উদ্দেশ্যে নিম্নোক্ত প্রস্তাবনা সমূহ পেশ করেন-

১। পবিত্র কুরআন ও ছহীহ হাদীছের আলোকে দেশের আইন, শাসন ও অর্থ ব্যবস্থা চালু করতে হবে। সূদভিত্তিক অর্থব্যবস্থা অনতিবিলম্বে বাতিল করতে হবে।

২। শিক্ষার সর্বস্তরে ইসলামী শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করতে হবে।

৩। রাসূলুল্লাহ ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর বিরুদ্ধে কটুক্তিকারী ও অমর্যাদাকারী নাস্তিক ব্লগার ও তাদের দোসরদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে এবং উক্ত মর্মে জাতীয় সংসদে কঠোর আইন প্রণয়ন করতে হবে।

৪। আলেম-ওলামার উপর যুলুম-নির্যাতন বন্ধ করতে হবে এবং নির্বিচারে মানুষ হত্যা অবিলম্বে বন্ধ করে দেশে শান্তি-শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে হবে।

৫। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহে প্রাণীর ছবি টাঙ্গানো এবং শিরক ও বিদ‘আতী অনুষ্ঠান সমূহ রাষ্ট্রীয়ভাবে বাধ্যতামূলক করা চলবে না।

৬। সর্বস্তরে দল ও প্রার্থীবিহীন নেতৃত্ব নির্বাচন ব্যবস্থা চালু করতে হবে।

৭। দেশের শান্তিপ্রিয় মুসলিম জনগণের আক্বীদা-বিশ্বাসের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণকারী এবং বিচার ব্যবস্থার প্রতি হুমকি সৃষ্টিকারী শাহবাগের কথিত ‘প্রজন্ম চত্বর’ অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে।

ইজতেমার অন্যান্য রিপোর্ট

ওলামা ও যুবসমাবেশ :

ইজতেমার ২য় দিন বেলা সাড়ে ১০-টায় প্রস্তাবিত দারুলহাদীছ বিশ্ববিদ্যালয় (প্রাঃ) জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে পৃথক প্যান্ডেলে আয়োজিত ‘বাংলাদেশ আহলেহাদীছ যুবসংঘ’-এর উদ্যোগে ‘যুবসমাবেশ’ অনুষ্ঠিত হয়। ‘যুবসংঘ’-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি মুযাফফর বিন মুহসিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত সমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষণে মুহতারাম আমীরে জামা‘আত প্রফেসর ডঃ মুহাম্মাদ আসাদুল্লাহ আল-গালিব বলেন, যুবসমাজকে পরিপূর্ণভাবে ইসলামে দাখিল হ’তে হবে। ইসলাম ও কুফর উভয়ের মিশ্রণে যে জীবনব্যবস্থা আজ সৃষ্টি হয়েছে, তা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, আজ মানুষ বেতনবৃদ্ধির জন্য মিছিল করে, কাফনের কাপড় মাথায় বেঁধে অনশন করে, অথচ কখনও সূদ নিষিদ্ধ করার জন্য রাস্তায় নামে না, মিছিল হয় না, হরতাল হয় না। তিনি যুবকদের উদ্দেশ্যে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে কোথায় চলেছ তোমরা? মুক্তিযুদ্ধ কর জাহান্নাম থেকে মুক্তির জন্য, জান্নাত হারানোর জন্য যুদ্ধ করো না। এটাই হ’ল আসল মুক্তিযুদ্ধ। এই মুক্তিযুদ্ধের জন্যই ‘আহলেহাদীছ যুবসংঘে’র সৃষ্টি। তিনি মুসলিম জাতির স্বর্ণোজ্জ্বল অতীতকে স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, আজও সেই মদীনা আছে, ফিলিস্তীন আছে,  মাদায়েন আছে,  কিন্তু সেই আমানতদার, নিখাদ জান্নাতপিয়াসী খাঁটি মানুষগুলো আর নেই। খেজুর পাতার চাল আর খেজুর গাছেরগুড়ি দিয়ে তৈরী যে মসজিদে নববী থেকে একদিন বিপ্লবের বাণী সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছিল, সেই মসজিদে নববী আজ মর্মর পাথর আর এসি দিয়ে সমৃদ্ধ হয়েছে বটে। কিন্তু সেখানে আর আবুবকর, ওমর তৈরী হয় না। তাই আমরা বিশাল বিশাল বিল্ডিং তৈরী করতে চাই না, কেবল একজন মানুষের মত মানুষ তৈরী করাই আমাদের উদ্দেশ্য। অতএব যুবকদের কাছে আমাদের দাবী রইল, তোমরা যেখানেই যাও, যেখানেই থাক, সব জায়গায় তোমরা হবে সংস্কারক। তবেই তোমাদের জন্য জান্নাত অপেক্ষা করবে। আলেম সমাজকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আলেম সমাজ আজ ইলমের অহংকার করতে গিয়ে সমাজের প্রতি তাঁদের দায়িত্ব ভুলে যাচ্ছেন। নিজের যিদকে বজায় রাখতে গিয়ে তাঁরা সমাজকে বিভক্ত করে ফেলেছেন। এটা কখনই কাম্য নয়। দ্বীনকে বিজয়ী করতে হ’লে তাদেরকে অবশ্যই এই হঠকারী নীতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। কেবল বক্তা হ’লেই চলবে না, সমাজ বিপ্লবের আন্দোলনে একজন যোগ্য মুজাহিদ হিসাবে আলেমদেরকে ময়দানে নামতে হবে। এককভাবে ফেরেশতা হয়ে জান্নাতের পথ খুঁজলে হবে না, জামা‘আতবদ্ধ হয়ে সকলকে নিয়েই জান্নাতে প্রবেশের সংকল্প করতে হবে। বাতিলপন্থীরা বাতিল প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হবে, আর হকপন্থীরা বিভক্ত হবে? এটা কখনই হ’তে পারে না। তিনি সমাজ সংস্কার আন্দোলনে ঐক্যবদ্ধ ভূমিকা পালনের জন্য আলেম সমাজের প্রতি আহবান জানান।

সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য পেশ করেন ‘আন্দোলন’-এর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক নূরুল ইসলাম, সাহিত্য ও পাঠাগার সম্পাদক অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম, প্রচার ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক ড. মুহাম্মাদ সাখাওয়াত হোসাইন, যুববিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক মুহাম্মাদ আমীনুল ইসলাম, ‘বাংলাদেশ আহলেহাদীছ যুবসংঘ’-এর সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ড. মুহাম্মাদ কাবীরুল ইসলাম, সহ-সভাপতি অধ্যাপক আকবার হোসাইন, আল-মারকাযুল ইসলামী আস-সালাফী, নওদাপাড়া, রাজশাহীর অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুর রায্যাক বিন ইউসুফ প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালক ছিলেন ‘যুবসংঘে’র কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি নূরুল ইসলাম। বিপুল সংখ্যক যুবক ও সুধীমন্ডলী এই প্রাণবন্ত সমাবেশে অংশগ্রহণ করেন। সমাবেশে অতিথিমন্ডলী এবং সাবেক কেন্দ্রীয় কাউন্সিল সদস্যদেরকে সদ্য প্রকাশিত ‘কেন্দ্রীয় কাউন্সিল সদস্য সম্মেলন ২০১১ স্মারকগ্রন্থ ও সিডি উপহার হিসাবে প্রদান করা হয়।

মহিলা সমাবেশ :

ইজতেমার ২য় দিন বেলা ১০-টায় মহিলা সালাফিয়া মাদরাসা প্রাঙ্গণে মহিলাদের জন্য নির্মিত পৃথক প্যান্ডেলে এক মহিলা সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ‘আহলেহাদীছ মহিলা সংস্থা’র কেন্দ্রীয় সভানেত্রী মুহতারামা তাহেরুন্নেছার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত সমাবেশে মহিলাদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন বিভিন্ন যেলা দায়িত্বশীলবৃন্দ।

প্রশ্নোত্তর পর্ব :

এবারই প্রথম মত ইজতেমায় উন্মুক্ত প্রশ্নোত্তর পর্বের আয়োজন করা হয়। ইজতেমার ২য় দিন সকাল সাড়ে ৮-টা থেকে বেলা সাড়ে ১০-টা পর্যন্ত ২ ঘণ্টাব্যাপী এই আকর্ষণীয় প্রশ্নোত্তর পর্বে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দেন মাওলানা আমানুল্লাহ বিন ইসমাঈল ও মুযাফফর বিন মুহসিন।   

জাতীয় গ্রন্থপাঠ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ : গতবারের মত এবারও ‘যুবসংঘে’র উদ্যোগে উক্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। যাতে ‘ছালাতুর রাসূল (ছাঃ)’ গ্রন্থের উপর সকলের জন্য উন্মুক্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এতে শীর্ষস্থান অধিকারী পাঁচজন হ’ল যথাক্রমে হায়দার আলী (মেহেরপুর), শাহীন রেযা (চাঁপাইনবাবগঞ্জ), হারূণুর রশীদ (ঝিনাইদহ), মুছ‘আব ভুঁইয়া (কুমিল্লা) ও মুহাম্মাদ শরীফুল ইসলাম (গাইবান্ধা)। এছাড়া বিশেষ পুরস্কার লাভ করেন যথাক্রমে আবু সাঈদ (রাজশাহী), সাখাওয়াত হোসাইন (রাজশাহী), আসাদুয্যামান (গাইবান্ধা), আব্দুল্লাহ আল-মাহমূদ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) ও নাজমুল আহসান (সাতক্ষীরা)। বিজয়ীদের হাতে সম্মাননা সনদ ও পুরস্কার তুলে দেন মুহতারাম আমীরে জামা‘আত ও সেক্রেটারী জেনারেল।

বিদায়ী ভাষণ ও দো‘আ :

৩য় দিন শনিবার ফজরের জামা‘আতে ইমামতি শেষে মুহতারাম আমীরে জামা‘আত ইজতেমায় আগত মুছল্লীদের উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বিদায়ী ভাষণ দেন এবং তিনি সবাইকে ছহী-সালামতে স্ব স্ব গন্তব্যে পৌঁছে যাওয়ার প্রার্থনা করে মজলিস ভঙ্গের সুন্নাতী দো‘আ পাঠের মাধ্যমে ইজতেমার সমাপ্তি ঘোষণা করেন। বিদায়কালে উপস্থিত মুছল্লীবৃন্দ সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আবেগভরা মনে মুহতারাম আমীরে জামা‘আতের নিকট থেকে বিদায়ী দো‘আ নিয়ে যান।