হাদীছের গল্প

ওমর (রাঃ)-এর শাহাদত ও ওছমান (রাঃ)-এর খলীফা মনোনয়ন

ইসলামের দ্বিতীয় খলীফা ওমর (রাঃ) চরমপন্থীদের হাতে ছালাতরত অবস্থায় ছুরিকাহত হন। অতঃপর তিনি পরবর্তী খলীফা মনোনয়নের জন্য ৭ সদস্যের পরিষদ গঠন করে দিয়ে যান। ঐ পরিষদ ওছমান (রাঃ)-কে খলীফা মনোনীত করেন। এরপর ওছমান (রাঃ) খিলাফতের বায়‘আত গ্রহণ করেন। এ সম্পর্কে নিম্নোক্ত হাদীছ।-

আমর ইবনু মায়মূন (রহঃ) হ’তে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি ওমর ইবনুল খাত্ত্বাব (রাঃ)-কে আহত হবার কিছু দিন পূর্বে মদীনায় দেখেছি যে, তিনি হুযায়ফাহ ইবনু ইয়ামান (রাঃ) ও ওছমান ইবনু হুনায়ফ (রহঃ)-এর নিকট দাঁড়িয়ে তাঁদেরকে লক্ষ্য করে বলছেন, তোমরা এটা কী করলে? তোমরা এটা কী করলে? তোমরা কি আশঙ্কা করছ যে, তোমরা ইরাক ভূমির উপর যে কর ধার্য করেছ তা বহনে ঐ ভূ-খন্ড অক্ষম? তারা বললেন, আমরা যে পরিমাণ কর ধার্য করেছি, ঐ ভূ-খন্ড তা বহনে সক্ষম। এতে বাড়তি কোন বোঝা চাপানো হয়নি। তখন ওমর (রাঃ) বললেন, তোমরা আবার চিন্তা করে দেখ যে, তোমরা এ ভূ-খন্ডের উপর যে কর আরোপ করেছ তা বহনে সক্ষম নয়? বর্ণনাকারী বলেন, তাঁরা বললেন, না। অতঃপর ওমর (রাঃ) বললেন, আল্লাহ যদি আমাকে সুস্থ রাখেন তবে ইরাকের বিধবাগণকে এমন অবস্থায় রেখে যাব যাতে তারা আমার পরে কখনো অন্য কারো মুখাপেক্ষী না হয়। বর্ণনাকারী বলেন, অতঃপর চতুর্থ দিন তিনি আহত হ’লেন। যেদিন ভোরে তিনি আহত হন, আমি তাঁর কাছে দাঁড়িয়েছিলাম এবং তাঁর ও আমার মাঝে আব্দুল্লাহ ইবনু আববাস (রাঃ) ছাড়া অন্য কেউ ছিল না। ওমর (রাঃ) দু’কাতারের মধ্য দিয়ে চলার সময় বলতেন, কাতার সোজা করে নাও। যখন দেখতেন কাতারে কোন ত্রুটি নেই তখন তাকবীর বলতেন। তিনি অধিকাংশ সময় সূরা ইউসুফ, সূরা নাহল অথবা এ ধরনের সূরা প্রথম রাক‘আতে তিলাওয়াত করতেন, যেন অধিক পরিমাণে লোক প্রথম রাক‘আতে শরীক হ’তে পারেন। তাকবীর বলার পরেই আমি তাঁকে বলতে শুনলাম, একটি কুকুর আমাকে আঘাত করেছে অথবা বলেন, আমাকে আক্রমণ করেছে। ঘাতক ‘ইলজ’ দ্রুত পলায়নের সময় দু’ধারী খঞ্জর দিয়ে ডানে বামে আঘাত করে চলছে। এভাবে সে তের জনকে আহত করল। এদের মধ্যে সাত জন শহীদ হ’লেন। এ অবস্থা দেখে এক মুসলিম তার লম্বা চাদরটি ঘাতকের উপর ফেলে দিলেন। ঘাতক যখন বুঝতে পারল যে, সে ধরা পড়ে যাবে তখন সে আত্মহত্যা করল।

ওমর (রাঃ) আব্দুর রহমান ইবনু আউফ (রাঃ)-এর হাত ধরে সামনে এগিয়ে দিলেন। ওমর (রাঃ)-এর নিকটে যারা ছিল শুধুমাত্র তারাই ব্যাপারটি দেখতে পেল। আর মসজিদের শেষে যারা ছিল তারা ব্যাপারটি এর অধিক বুঝতে পারল না যে, ওমর (রাঃ)-এর কণ্ঠস্বর শুনা যাচ্ছে না। তাই তারা ‘সুবহানাল্লাহ, সুবহানাল্লাহ’ বলতে লাগল। আব্দুর রহমান ইবনু আউফ (রাঃ) তাঁদেরকে নিয়ে সংক্ষেপে ছালাত আদায় করলেন। যখন মুছল্লীগণ চলে গেলেন, তখন ওমর (রাঃ) বললেন, হে ইবনু আববাস (রাঃ)! দেখ তো কে আমাকে আঘাত করল। তিনি কিছুক্ষণ অনুসন্ধান করে এসে বললেন, মুগীরাহ ইবনু শু‘বাহ (রাঃ)-এর গোলাম (আবূ লুলু)। ওমর (রাঃ) জিজ্ঞেস করলেন, ঐ কারিগর গোলামটি? তিনি বললেন, হ্যাঁ। ওমর (রাঃ) বললেন, আল্লাহ তার সর্বনাশ করুন। আমি তার সম্পর্কে সঠিক সিদ্ধান্ত দিয়েছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহ আমার মৃত্যু ইসলামের দাবীদার কোন ব্যক্তির হাতে ঘটাননি। হে ইবনু আববাস (রাঃ)! তুমি এবং তোমার পিতা মদীনার কাফির গোলামের সংখ্যা বৃদ্ধি পসন্দ করতে। আববাস (রাঃ)-এর নিকট অনেক অমুসলিম গোলাম ছিল। ইবনু আববাস (রাঃ) বললেন, যদি আপনি চান তবে আমি কাজ করে ফেলি অর্থাৎ আমি তাদেরকে হত্যা করে ফেলি। ওমর (রাঃ) বললেন, তুমি ভুল বলছ। কেননা তারা তোমাদের ভাষায় কথা বলে, তোমাদের কিবলামুখী হয়ে ছালাত আদায় করে, তোমাদের মত হজ্জ করে।

অতঃপর তাঁকে তাঁর ঘরে নেয়া হ’ল। আমরা তাঁর সঙ্গে চললাম। মানুষের অবস্থা দৃষ্টে মনে হচ্ছিল, ইতিপূর্বে তাদের উপর এত বড় মুছীবত আর আসেনি। কেউ কেউ বলছিলেন, ভয়ের কিছু নেই। আবার কেউ বলছিলেন, আমি তাঁর সম্পর্কে আশংকাবোধ করছি। অতঃপর খেজুরের শরবত আনা হ’ল, তিনি তা পান করলেন। কিন্তু তা তাঁর পেট হ’তে বেরিয়ে পড়ল। অতঃপর দুধ আনা হ’ল, তিনি তা পান করলেন; তাও তাঁর পেট হ’তে বেরিয়ে পড়ল। তখন সকলেই বুঝতে পারলেন, তাঁর মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী। আমরা তাঁর নিকট উপস্থিত হ’লাম। অন্যান্য লোকজনও আসতে শুরু করল। সকলেই তাঁর প্রশংসা করতে লাগল। তখন যুবক বয়সী একটি লোক এসে বলল, হে আমীরুল মুমিনীন! আপনার জন্য আল্লাহ্র সু-সংবাদ রয়েছে; আপনি তা গ্রহণ করুন। আপনি নবী করীম (ছাঃ)-এর সাহচর্য গ্রহণ করেছেন, ইসলামের প্রাথমিক যুগেই আপনি তা গ্রহণ করেছেন, যে সম্পর্কে আপনি নিজেই অবগত আছেন। অতঃপর আপনি খলীফা হয়ে ন্যায়বিচার করেছেন। অতঃপর আপনি শাহাদত লাভ করছেন। ওমর (রাঃ) বললেন, আমি পসন্দ করি যে তা আমার জন্য ক্ষতিকর বা লাভজনক না হয়ে সমান সমান হয়ে যাক। যখন যুবকটি চলে যেতে উদ্যত হ’ল তখন তার লুঙ্গিটি মাটি ছুঁয়ে যাচ্ছিল। ওমর (রাঃ) বললেন, যুবকটিকে আমার নিকট ডেকে আন। তিনি বললেন, হে ভাতিজা! তোমার কাপড়টি উঠিয়ে নাও। এটা তোমার কাপড়ের পরিচ্ছন্নতার জন্য এবং তোমার রবের নিকটও পসন্দনীয়।

হে আব্দুল্লাহ ইবনু ওমর! তুমি হিসাব করে দেখ আমার ঋণের পরিমাণ কত? তারা হিসাব করে দেখতে পেলেন ছিয়াশি হাযার (দিরহাম) বা এর কাছাকাছি। তিনি বললেন, যদি ওমরের পরিবার-পরিজনের মাল দ্বারা তা পরিশোধ হয়ে যায়, তবে তা দিয়ে পরিশোধ করে দাও। অন্যথা আদি ইবনু কা‘ব-এর বংশধরদের নিকট হ’তে সাহায্য গ্রহণ কর। তাদের মাল দিয়েও যদি ঋণ পরিশোধ না হয় তবে কুরাইশ কবীলা হ’তে সাহায্য গ্রহণ করবে, এর বাইরে কারো সাহায্য গ্রহণ করবে না। আমার পক্ষ হ’তে তাড়াতাড়ি ঋণ আদায় করে দাও। উম্মুল মুমিনীন আয়েশা (রাঃ)-এর খিদমতে তুমি যাও এবং বল, ওমর আপনাকে সালাম পাঠিয়েছেন। আমীরুল মুমিনীন শব্দটি বলবে না। কেননা এখন আমি মুমিনগণের আমীর নই। তাঁকে বল, ওমর ইবনুল খাত্ত্বাব তাঁর সাথীদ্বয়ের পাশে দাফন হবার অনুমতি চাচ্ছেন।

ইবনু ওমর (রাঃ) আয়েশা (রাঃ)-এর খিদমতে গিয়ে সালাম জানিয়ে প্রবেশের অনুমতি চাইলেন। তিনি বললেন, প্রবেশ কর। তিনি দেখলেন আয়েশা (রাঃ) বসে বসে কাঁদছেন। তিনি গিয়ে বললেন, ওমর ইবনুল খাত্ত্বাব (রাঃ) আপনাকে সালাম পাঠিয়েছেন এবং তাঁর সঙ্গীদ্বয়ের পার্শ্বে দাফন হবার জন্য আপনার অনুমতি চেয়েছেন। আয়েশা (রাঃ) বললেন, তা আমার আকাঙ্ক্ষা ছিল। কিন্তু আজ আমি এ ব্যাপারে আমার উপরে তাঁকে অগ্রগণ্য করছি। আব্দুল্লাহ ইবনু ওমর (রাঃ) যখন ফিরে আসছেন তখন বলা হ’ল, এই যে আব্দুল্লাহ ফিরে আসছে। তিনি বললেন, আমাকে উঠিয়ে বসাও। তখন এক ব্যক্তি তাকে ঠেস দিয়ে বসিয়ে ধরে রাখলেন। ওমর (রাঃ) জিজ্ঞেস করলেন, কী সংবাদ? তিনি বললেন, আমীরুল মুমিনীন, আপনি যা কামনা করেছেন, তাই হয়েছে, তিনি অনুমতি দিয়েছেন। ওমর (রাঃ) বললেন, আলহামদুলিল্লাহ। এর চেয়ে বড় কোন বিষয় আমার নিকট ছিল না। যখন আমার মৃত্যু হয়ে যাবে তখন আমাকে উঠিয়ে নিয়ে, তাঁকে আমার সালাম জানিয়ে বলবে, ওমর ইবনুল খাত্ত্বাব (রাঃ) আপনার অনুমতি চাচ্ছেন। যদি তিনি অনুমতি দেন, তবে আমাকে প্রবেশ করাবে আর যদি তিনি অনুমতি না দেন তবে আমাকে সাধারণ মুসলিমদের গোরস্থানে নিয়ে যাবে। এ সময় উম্মুল মুমিনীন হাফছাহ (রাঃ)-কে কতিপয় মহিলাসহ আসতে দেখে আমরা উঠে পড়লাম। হাফছাহ (রাঃ) তাঁর নিকট গিয়ে কিছুক্ষণ কাঁদলেন। অতঃপর পুরুষরা এসে প্রবেশের অনুমতি চাইলে তিনি ঘরের ভিতরে গেলেন। ঘরের ভিতর হ’তেও আমরা তাঁর কান্নার আওয়াজ শুনতে পাচ্ছিলাম। তাঁরা বললেন, হে আমীরুল মুমিনীন! আপনি ওছিয়ত করুন এবং খলীফা মনোনীত করুন। ওমর (রাঃ) বললেন, খিলাফতের জন্য এ কয়েকজন ছাড়া অন্য কাউকে আমি যোগ্যতম পাচ্ছি না, যাঁদের প্রতি নবী করীম (ছাঃ) তাঁর ইন্তিকালের সময় রাযী ও খুশী ছিলেন। অতঃপর তিনি তাঁদের নাম বললেন, আলী, ওছমান, যুবায়ের, ত্বালহা, সা‘দ ও আব্দুর রহমান ইবনু আঊফ (রাঃ)। অতঃপর বললেন, আব্দুল্লাহ ইবনু ওমর (রাঃ) তোমাদের সঙ্গে থাকবে। কিন্তু সে খিলাফত লাভ করতে পারবে না। তা ছিল শুধু সান্ত্বনা মাত্র। যদি খিলাফতের দায়িত্ব সা‘দ (রাঃ)-এর উপর ন্যস্ত করা হয় তবে তিনি এর জন্য যোগ্যতম ব্যক্তি। আর যদি তোমাদের মধ্যে অন্য কেউ খলীফা নির্বাচিত হন, তবে তিনি যেন সর্ব বিষয়ে সা‘দের সাহায্য ও পরামর্শ গ্রহণ করেন। আমি তাঁকে অযোগ্যতা বা খিয়ানতের কারণে অপসারণ করিনি। আমার পরের খলীফাকে আমি ওছিয়ত করছি, তিনি যেন প্রথম যুগের মুহাজিরগণের হক সম্পর্কে সচেতন থাকেন, তাদের মান-সম্মান রক্ষায় সচেষ্ট থাকেন। আমি তাঁকে আনছার ছাহাবীগণের যাঁরা মুহাজিরগণের আসার আগে এই নগরীতে (মদীনায়) বসবাস করে আসছিলেন এবং ঈমান এনেছেন, তাঁদের প্রতি সদ্ব্যবহার করার ওছিয়ত করছি যে, তাঁদের মধ্যে নেককারগণের ওযর-আপত্তি যেন গ্রহণ করা হয় এবং তাঁদের মধ্যে কারোর ভুল-ত্রুটি হ’লে তা যেন ক্ষমা করে দেয়া হয়। আমি তাঁকে এ ওছিয়তও করছি যে, তিনি যেন রাজ্যের বিভিন্ন শহরের অধিবাসীদের প্রতি সদ্ব্যবহার করেন। কেননা তাঁরাও ইসলামের হিফাযতকারী এবং তারাই ধন-সম্পদের যোগানদাতা। তারাই শত্রুদের চোখের কাঁটা। তাদের হ’তে তাদের সন্তুষ্টির ভিত্তিতে কেবলমাত্র তাদের প্রয়োজনের অতিরিক্ত সম্পদ যেন যাকাত আদায় করা হয়। আমি তাঁকে পল্লীবাসীদের প্রতি সদ্ব্যবহার করারও ওছিয়ত করছি। কেননা তারাই আরবের ভিত্তি এবং ইসলামের মূল শক্তি। তাদের প্রয়োজনের অতিরিক্ত সম্পদ এনে তাদের দরিদ্রদের মধ্যে যেন বিলিয়ে দেয়া হয়। আমি তাঁকে আল্লাহ ও তাঁর রাসূল (ছাঃ)-এর যিম্মীদের বিষয়ে ওছিয়ত করছি যে, তাদের সঙ্গে কৃত অঙ্গীকার যেন পুরা করা হয়। তাদের পক্ষাবলম্বনে যেন যুদ্ধ করা হয়, তাদের শক্তি-সামর্থ্যের অধিক জিযিয়া যেন চাপানো না হয়।

(রাবী বলেন) ওমর (রাঃ)-এর ইন্তিকাল হয়ে গেলে আমরা তাঁর লাশ নিয়ে পায়ে হেঁটে চললাম। আব্দুল্লাহ ইবনু ওমর (রাঃ) আয়েশা (রাঃ)-কে সালাম করলেন এবং বললেন, ওমর ইবনুল খাত্ত্বাব (রাঃ) অনুমতি চাচ্ছেন। আয়েশা (রাঃ) বললেন, তাঁকে প্রবেশ করাও। অতঃপর তাঁকে প্রবেশ করান হ’ল এবং তাঁর সঙ্গীদ্বয়ের পার্শ্বে দাফন করা হ’ল। যখন তাঁর দাফন কাজ শেষ হ’ল, তখন ঐ ব্যক্তিবর্গ একত্রিত হ’লেন। এ সময় আব্দুর রহমান (রাঃ) বললেন, তোমরা তোমাদের বিষয়টি তোমাদের মধ্য হ’তে তিনজনের উপর ছেড়ে দাও। তখন যুবায়ের (রাঃ) বললেন, আমি আমার বিষয়টি আলী (রাঃ)-এর উপর অর্পণ করলাম। ত্বালহা (রাঃ) বললেন, আমার বিষয়টি ওছমান (রাঃ)-এর উপর ন্যস্ত করলাম। সা‘দ (রাঃ) বললেন, আমার বিষয়টি আব্দুর রহমান ইবনু আউফ (রাঃ)-এর উপর ন্যস্ত করলাম। অতঃপর আব্দুর রহমান (রাঃ) ওছমান ও আলী (রাঃ)-কে বললেন, আপনাদের দু’জনের মধ্য হ’তে কে এই দায়িত্ব হ’তে অব্যাহতি পেতে ইচ্ছা করেন? এ দায়িত্ব অপর জনের উপর অর্পণ করব। আল্লাহ ও ইসলামের হক আদায় করা তাঁর অন্যতম দায়িত্ব হবে। কে অধিকতর যোগ্য সে সম্পর্কে দু’জনেরই চিন্তা করা উচিত। ব্যক্তিদ্বয় চুপ থাকলেন। তখন আব্দুর রহমান (রাঃ) নিজেই বললেন, আপনারা এ দায়িত্ব আমার উপর ন্যস্ত করতে পারেন কি? আল্লাহকে সাক্ষী রেখে বলছি, আমি আপনাদের মধ্যকার যোগ্যতম ব্যক্তিকে নির্বাচিত করতে একটুও ত্রুটি করব না। তাঁরা উভয়ে বললেন, হ্যাঁ। তাদের একজনের হাত ধরে বললেন, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-এর সঙ্গে আপনার যে ঘনিষ্ঠ আত্মীয়তা এবং ইসলাম গ্রহণের অগ্রগামিতা আছে তা আপনিও ভালভাবে জানেন। আল্লাহ্র ওয়াস্তে এটা আপনার জন্য যরূরী হবে যে, যদি আপনাকে খলীফা মনোনীত করি তাহ’লে আপনি ইনছাফ প্রতিষ্ঠা করবেন। আর যদি ওছমান (রাঃ)-কে মনোনীত করি তবে আপনি তাঁর কথা শুনবেন এবং তাঁর প্রতি অনুগত থাকবেন। অতঃপর তিনি অপর জনের সঙ্গে একান্তে অনুরূপ কথা বললেন। এভাবে অঙ্গীকার গ্রহণ করে তিনি বললেন, হে ওছমান (রাঃ)! আপনার হাত বাড়িয়ে দিন। তিনি (আব্দুর রহমান (রাঃ)-এর) তাঁর হাতে বায়‘আত করলেন। অতঃপর আলী (রাঃ) তাঁর (ওছমান (রাঃ)-এর নিকট) বায়‘আত করলেন। অতঃপর মদীনাবাসীগণ এগিয়ে এসে সকলেই বায়‘আত করলেন (বুখারী হা/৩৭০০)

আলোচ্য হাদীছে ওমর (রাঃ)-এর বদান্যতার প্রমাণ রয়েছে। এতে আয়েশা (রাঃ)-এর প্রতি ওমর (রাঃ)-এর সম্মান করার বিষয়টিও ফুটে উঠেছে। সাথে সাথে নেতা মনোনয়নের ব্যাপারেও রয়েছে দিক নির্দেশনা। এ হাদীছটিতে মুমিনদের রাজনৈতিক ও সামাজিক জীবনের গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা রয়েছে। এ হাদীছ থেকে শিক্ষা নিয়ে আমাদের পার্থিব জীবনকে ঢেলে সাজাতে হবে। আল্লাহ আমাদের তাওফীক্ব দান করুন- আমীন!

* মুসাম্মাৎ শারমীন আখতার
পিঞ্জুরী, কোটালীপাড়া, গোপালগঞ্জ।